মালয়েশিয়া থেকে ২৮ হাজার অবৈধ অভিবাসী ফেরত গেছে ১ মাসেই


  1. মালয়েশিয়ায় আগস্ট এর 1 তারিখ থেকে মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক বেক ফর গুড  আয়োজিত প্রোগ্রামে এ পর্যন্ত গত একমাসে মালয়েশিয়া থেকে অবৈধ শ্রমিকরা নিজ নিজ দেশে ফিরেছেন তাদের


সংখ্যা 28 হাজার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দিন তার মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।  আজ মালয়েশিয়া বেসরকারি টেলিভিশনে সম্প্রচারিত হবে মহিউদ্দিন এর সরাসরি প্রোগ্রাম।  বর্তমান মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দিন তিনি একজন কঠোর
অবৈধ  অভিবাসী  বিরোধী,  তিনি
বারবার মাঠ পর্যায়ে নেমেছেন অবৈধ অভিবাসী ধরতে গত এক বছরে তিনি ইমিগ্রেশন কে সাথে নিয়ে কলালামপুর বিভিন্ন জায়গায় মাঠ পর্যায় থেকে অবৈধ অভিবাসীদের অভিযানে তিনি উপস্থিত ছিলেন।  তিনি  অবৈধ অভিবাসী ধরতে মালয়েশিয়ায় চারটি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন এর মধ্যে একটি পদক্ষেপ হলো  অবৈধ এদেরকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো।  সেই কর্মসূচি অনুযায়ী  অগাস্টের 1 তারিখ থেকে অবৈধ শ্রমিকরা ইমিগ্রেশন এর ফিঙ্গারপ্রিন্ট দিয়ে পাস নিয়ে নিজ নিজ দেশে ফিরে যেতে পারতেছে এ পর্যন্ত 28 হাজার শ্রমিক তারা নিজ নিজ দেশে ফিরে গেছে এদের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ ইন্দোনেশিয়া ফিলিপাইন ইন্ডিয়ান নেপাল  ভিয়েতনাম ।  কর্মসূচি আগামী 31 ডিসেম্বর পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে তারা আশা করতেছে যে আগামী 31 ডিসেম্বর পর্যন্ত  চার লক্ষ অবৈধ অভিবাসী মালয়েশিয়া ছেড়ে চলে যাবে।

আরোও পড়ুন মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী খুন

বিড়াল নিয়ে ঝগড়ায় মালয়েশিয়ায় ইন্দোনেশিয়ার নাগরিকের ছুরিকাঘাতে এক বাংলাদেশি খুন হয়েছেন। ৪ সেপ্টেম্বর রাতে বিড়ালের পানপাত্রে থাকা পানি ছুড়ে মারাকে কেন্দ্র করে
পেটালিং জায়ায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। নিহত বাংলাদেশির নাম মো. আতাস আলী।
পেটালিং জায়ার পুলিশ প্রধান এসিপি মোহাম্মদ জানি চে দিন জানিয়েছেন, নিহত আতাস আলির ১২টি পোষা বিড়াল ছিল। বুধবার রাতে বিড়ালগুলোকে খাবার দেওয়ার সময় ভুল করে পানপাত্রের পানি এক ইন্দোনেশিয়ার নাগরিকের গায়ে ছুড়ে

মারেন আতাস। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওই ইন্দোনেশিয়ান ছুরি নিয়ে হামলা চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন আতাস। পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও জানান, হামলাকারী হারিদিয়ান্তো ও তার মা ওই ভবনেই থাকতেন। ঘটনার পরপর তারা দু’জনই পালিয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহত আতাস আলির বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি।

 

No comments

Powered by Blogger.