খারাপ মেয়েদের আখড়া মালয়েশিয়ায়

মালয়েশিয়ায় রয়েছে বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর বসবাস, এদেশে মুসলমানদের সংখ্যা মাত্র ৬০%  মালাই এবং ইন্দোনেশিয়ান মুসলমানরা এদেশের মুসলমান  মূল মুসলিম জনসংখ্যা যা সর্বোচ্চ 60 পার্সেন্ট আর বাকিরা হচ্ছে ইন্ডিয়ান চাইনিজ

বিধর্মী। অর্থাৎ 40 পার্সেন্ট জনসংখ্যা হচ্ছে মালয়েশিয়ায় ভিন্ন ভিন্ন ধর্মী। মালয়েশিয়া তাদের পার্শ্ববর্তী দেশ দ্বারা প্রভাবিত বিশেষ করে থাইল্যান্ড ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড বিশ্বের এক নাম্বার পতিতাদের  আকর্ষণীয় দেশ। মালয়েশিয়ায় এর প্রভাব রয়েছে ব্যাপক বিশেষ করে যারা মালয়েশিয়ায় চাইনিজ এবং ইন্ডিয়ান নাগরিক তারা এই দুইটি দেশ থেকে যৌনকর্মী মালয়েশিয়ায়
এনে  অবৈধ ব্যবসা করে যাচ্ছেন। মালয়েশিয়ার আনাচে-কানাচে রয়েছে নাইট ক্লাব মদের বার  এবং অবৈধ মাসাজ পার্লার এবং বিউটি পার্লার যেগুলো মূলত থাইল্যান্ড ভিয়েতনাম ফিলিপাইন  কম্বোডিয়া থেকে নারি যৌনকর্মী এনে অবৈধ ব্যবসা করান দেশের চাইনিজ এবং ইন্ডিয়ান মালিকেরা।  মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রীয় আইনে এদেশে যৌনব্যবসা নিষিদ্ধ এবং পতিতালয়ের কোন লাইসেন্স দেয়া হয় না কিন্তু মালয়েশিয়ার আনাচে-কানাচে এই সকল কথিত মাসাজ পার্লার তথা অবৈধ কাজের দোকান দেখা যায় যা মূলত মাসাজ পার্লারের নামে লাইসেন্স করে থাকে কিন্তু ভিতরে তারা অবৈধ কাজ করে যাচ্ছে। মালয়েশিয়ার স্থানীয় পুলিশ এবং ইমিগ্রেশনের চোখে ফাঁকি দিয়ে তারা এই সকল ব্যবসা করে যাচ্ছে মালয়েশিয়ার ইমিগ্রেশন প্রায় প্রতিটা শহর এবং স্থানীয় বাজারগুলিতে অনবরত অভিযান চালিয়ে আটক করার পরেও এ ব্যবসা মালয়েশিয়ায় কোনোভাবেই রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না।
যৌনকর্মীরা তাদের মোবাইল নাম্বার  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম উইচ্যাট ফেসবুক হোয়াটসআপ এবং ওয়েবসাইট খুলে কাস্টমার জোগাড় করে থাকে। প্রকারভেদে তাদের কাস্টমার হয়ে থাকে এ দেশে বিদেশি শ্রমিকরা এ দেশের পর্যটক এবং স্থানীয়রা ও।  মালয়েশিয়ার প্রশাসন অনেক কড়াকড়ি  অভিযান পরিচালনা করার পরও দেখা যাচ্ছে এই সকল অবৈধ যৌন ব্যবসা নির্মূল করা যাচ্ছে না কারণ হচ্ছে তারা মালয়েশিয়ায় অবাধে প্রবেশ করতে পারে ইমিগ্রেশন তাদেরকে চিহ্নিত করতে পারে না।

No comments

Powered by Blogger.